সততার সাথে - সততার পথে

পাকা ধানক্ষেতে পাখির বাসা দেখেও তা সযন্তে অক্ষত রেখে কৃষক ধান কাটলেন

বোরহান মেহেদী, ঢাকা, বাংলাদেশ- ঘটনাটি বাংলাদেশের পূর্বাঞ্চল কিশোরগঞ্জ ইটনা হাওর এলাকার একটি পাকা ধানক্ষেতের। হাওরে এখন চরম ব্যস্ত সময় পার করছে কৃষক। ধান কাটতে নামলে পুরো জমি সাফ না করে কোন গেরস্তই বাড়ি ফেরেন না। বৈশাখ মাসের ঝড়বাদল শুরু হলে জমি বানের জলে নিমিষেই ডুবে যায়। তাই বর্তমান সময়টা শুধুই ধান কাঁটার সময়।

সলিম ব্যাপরি তার বর্গা জমিতে ধান কাঁটা শুরু করলে হঠাৎ নজড়ে পড়ে একটি পাখির বাসা। কৌতুহলে কাছে গিয়ে দেখে এতে বেশ কয়টি ডিম। তার মনে এটি ডাহুক পাখির বাসা। মানুষের শব্দ শুনে ডাহুক পাখিজোড়া হয়তো আশপাশে কোথাও লুকিয়ে আছে। সলিমের মনে বড় মায়া হলে, সে এই বাসাটি রেখে বাকি ধান কেটে বাড়ি ফিরে আসেন। তার ভাবনা ও আশা, পাখি যেন নিঃশ্চিন্তে ডিম ফুটিয়ে বাচ্চাগুলো বুকে ধারন করার সুযোগ পায়। এবং পাখির ছানাগুলোও বড় হয়ে একদিন আকাশে উড়ে বেড়াতে পারে।

আপাতঃ দৃষ্টিতে বিষয়টি সামান্য হলেও এর তাৎপর্য অসীম। বিলুপ্ত প্রায় পশু-পাখির প্রতি মানুষের ভালবাসা বাড়ছে। মানুষের ভিতরে পরিবর্তন আসছে। এই পরিবর্তন বিশ্বময় ছড়িয়ে পড়ুক। পৃথিবীটা সুন্দর হোক সবার জন্য।

কিশোরগঞ্জের কৃষকেরা অবহেলিত হলেও, তাদের ভালো কাজের কমতি নেই। দরিদ্র জীবন যাপনে তারা বারমাসই অবহেলিত থাকে। তেমন কোনো সহায়তা পাননা তারা। হাল বছরই তাঁদের কাউকে না কাউকে দেনার দায়ে আত্মহত্যা করতে হয়। কিন্তু তাদের মনটা বড়।

অতিথি আপ্যায়নে তারা সাধ্যমত পরম যত্নে করেন। এই ছবি জীবের প্রতি ভালোবাসাটাই তার বড় প্রামান। অসহায় জীবের প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে কৃষক সলিম ব্যাপরির সুখ্যাতি হাওর এলাকার সবার মুখে মুখে। ফেস বুকের কল্যাণে জীবন-ঘনিষ্ট চমৎকার ছবিটি বিশ্বজুড়ে ভ্যাইরাল। ছবিটি চোখ কাড়ছে সবার, জীবের প্রতি দয়া যেজন করে, সেজন সেবিছে ঈশ্বর।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

উত্তর দিন

Your email address will not be published.