সততার সাথে - সততার পথে

ডাইনি অপবাদে সামাজিক নির্যাতন-গুণিন সহ ৫ গ্রেফতার

আমরা আজকাল অতি আধুনিককালে বাস করছি। বিজ্ঞান-প্রযুক্তির দৌলতে মানুষ অপার সুখসুবিধা ভোগ করতে পারছে। পরিবর্তন হয়েছে মানসিকতার। কিন্তু এখনো পর্যন্ত গ্রামগঞ্জে কিছু কিছু মানুষ বোধ হয় যুগের সাথে নিজেকে বদলাতে পারে নি, রমরমিয়ে চালাতে চাইছে অন্ধ কুসংস্কারের ব্যবসা।

ডাইনি অপবাদে পূর্ব বর্ধমানের এক পরিবারকে একঘরে করে সামাজিক নির্যাতনের খবর উঠে এল।সরস্বতী সাঁতরা এবং তার পরিবার পূর্ব বর্ধমানের মাঝেরগ্রাম উত্তরপাড়ার বাসিন্দা। অতি সম্প্রতি এই পরিবারের ওপর অন্ধ কুসংস্কারের অত্যাচার চালায় কয়েকজন প্রতিবেশী। প্রতিবেশীরা হলেন কেনা মাঝি, সুকুমার ধারা, হারু মাঝি এবং রাজু মাঝি।

নির্যাতিত পরিবারের তরফ থেকে জানা যায় কিছুদিন আগে ধনঞ্জয় ধনঞ্জয় বৈরাগ্য নামের এক গুনিন তাদের গ্রামে এসে গ্রামে ডাইনি আছে বলে খবর দেয় এবং বলে ওই ডাইনির জন্যই নাকি মানুষের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে। তাই গ্রামের মানুষের সমৃদ্ধি আনতে ওই ডাইনিকে অবিলম্বে গ্রাম থেকে তাড়াতে হবে এবং ডাইনি হিসেবে গুণিনের প্ররোচনাতে সরস্বতী সাঁতরাকে চিহ্নিত করা হয়। এর পরে ওই পরিবারকে একঘরে করে নানা ভাবে নির্যাতন চালাতে থাকে ওই প্রতিবেশীরা।

সরস্বতী সাঁতরার পরিবারের তরফ থেকে স্থানীয় পঞ্চায়েত প্রধান, বিডিও অফিস এবং পুলিশে অভিযোগ করা হলে, পুলিশ তৎপরতা দেখে ওই পাঁচ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট ধারায় মামলা দায়ের করে মহকুমা আদালতে পেশ করা হয়, যদিও পরে ধৃতদের জামিন মঞ্জুর হয়।

আতঙ্কে রয়েছেন সরস্বতী সাঁতরা এবং তার পরিবার। সাম্প্রতিক এই ঘটনায় স্থানীয় প্রশাসন গ্রামবাসীকে সচেতন করার উদ্যোগ নেবে বলে জেলা পরিষদের সহ-সভাপতি দেব টুডু জানালেন।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

উত্তর দিন

Your email address will not be published.