সততার সাথে - সততার পথে

নিজেদের জেলাতেই শিক্ষক-শিক্ষিকাদের বদলির প্রক্রিয়া শুরু হতে চলেছে

কিছু দিন আগেই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন যে, শিক্ষক-শিক্ষিকারা এবার থেকে নিজেদের জেলাতেই পোস্টিং পাবেন। কিন্তু কবে থেকে তা শুরু হবে সে বিষয়ে ১১ই মার্চ ২০২০ তারিখে বিধানসভায় জানালেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তিনি জানান, আগামী ১লা এপ্রিল ২০২০ থেকে এই প্রক্রিয়া শুরু হতে চলেছে। তবে এখন শুধু মাত্র প্রাথমিক স্তরে শিক্ষক-শিক্ষিকাদের ক্ষেত্রে এই প্রক্রিয়া চালু করা হচ্ছে। ছাত্র-ছত্রী ও শিক্ষকের অনুপাত এবং শূন্যপদের বিবেচনা করেই বিভিন্ন স্কুলে বদলির সুযোগ পাবেন শিক্ষক-শিক্ষিকারা। যাঁরা ইতিমধ্যেই বদলির আবেদন করে ফেলেছেন, তাঁদের বিষয়টি আগে দেখা হবে।

প্রসঙ্গত, নিজ নিজ জেলায় পোস্টিং অথবা বদলি ব্যপারে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন অভিযোগ জানিয়েছেন শিক্ষক- শিক্ষিকারা। আবার অন্যদিকে পোস্টিং নিয়ে সমস্যার কারনে বারবার শিক্ষক-শিক্ষিকাদের ছুটি নেওয়াকে কেন্দ্র করে সমস্যার সম্মুখিন হতে হয়েছে শিক্ষা দফতরকে। এই ব্যপারে রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের বক্তব্য নিয়ে হইছই পড়েছিল কয়েক মাস আগে। শেষ পর্যন্ত সরস্বতী পুজোর দিন মুখ্যমন্ত্রী টুইট করেন যে, “এখন সরস্বতী পুজো, আমাদের সকল শিক্ষক-শিক্ষিকাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও শ্রদ্ধা জানানোর জন্যও আদর্শ সময়। তাই এই উপলক্ষে রাজ্যের সমস্ত শিক্ষক-শিক্ষিকাদের সুবিধার্থে একটি নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। প্রত্যেককে তাঁদের নিজের জেলাতেই পোস্টিং দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার।”

রাজ্য সরকারের এই সিদ্ধান্তের কারনে এই রাজ্যের সকল শিক্ষক-শিক্ষিকারা ভীষণভাবেই উপকৃত হবেন বলে আশাপ্রকাশ করেন তিনি। এই পদক্ষেপের কারনে একদিকে যেমন তাঁদের পরিবারের দেখভাল করতে সুবিধা হবে, ঠিক তেমনই পড়ানোর কাজে মনঃনিবেশ করতেও সুবিধা হবে বলে জানান মমতা বন্দপাধ্যায়। তবে পুরভোটের ঠিক আগে এই রকম একটি সিদ্ধান্তের পিছনে শুধু মাত্র ভোটব্যাঙ্কের রাজনীতি রয়েছে বলে কটাক্ষ করেন বিরোধীরা।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

উত্তর দিন

Your email address will not be published.