সততার সাথে - সততার পথে

‘বার্ধক্য ভাতা’ তুলতে গিয়ে রাজনৈতিক ভেদাভেদের শিকার হলেন বৃদ্ধা

রাজনৈতিক ভেদাভেদের শিকার হয়ে চলেছেন বালুরঘাটের গ্রামের দিকের লেখাপড়া না জানা লোকেরা।
সরকারের কল্যাণ প্রকল্প থেকে বয়সের ভারে ঝুঁকে পড়া গরীব মানুষ সকাল বেকাল নিজের জন্য দু’মুঠো অন্ন কোনোমতে জোগাতে সক্ষম হন। এতেও তাদের হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে বলে খবর আসছে।

‘চিন্তামণি বর্মন’ নামের এক বৃদ্ধা এমনটাই অভিযোগ করলেন। বৃদ্ধার বাড়ি বালুরঘাট ব্লকের চক্রাম এলাকায়। তিনি ‘বার্ধক্য ভাতা’ প্রতি মাসে পান। তিনি অভিযোগ করলেন যখন ভাটপাড়া গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার ব্যাংকে বার্ধক্য ভাতার টাকা তুলতে যান, তার কাছ থেকে বারবার নাকি জানতে চাওয়া হয় যে তিনি কোন দলের লোক অর্থাৎ কোন রাজনৈতিক দলের লোক।

চক্রাম এলাকার মেম্বার হলেন বিজেপি দলের এক নেতা। যেহেতু বৃদ্ধা কোন লেখাপড়া জানেন না তাই ব্যাঙ্ক ডিটেলস লিখিয়ে নেওয়ার জন্য ব্যাঙ্ক কর্মীর সাহায্য নিতে হয়। অত্যন্ত ক্ষোভ ও দুঃখের সাথে বৃদ্ধা আরো জানালেন এই সাহায্য না পেয়ে তাঁকে বারবার হয়রানি হতে হয়। তাঁকে শুনতে হয় “চক্রামের লোকদের আমরা লিখে দেব না, ওরা আমাদের ভোট দেয়নি”। তাই ভোট না পাওয়ার অজুহাতে বৃদ্ধাকে হেনস্থা করা হচ্ছে।

সরকারের তরফ থেকে জনতার জন্য যখন কোন প্রকল্প আসে তখন সবাই বিশেষ কিছু সাহায্যের জন্য তার এলাকার রাজনৈতিক প্রতিনিধিদের দিকে তাকিয়ে থাকেন যাতে ঠিকঠাক ভাবে নিজের অধিকার প্রাপ্তি হয়। গণতান্ত্রিক দেশে সুষ্ঠু ভাবে রাজনীতি তখনই চলতে পারে যখন সরকারি কাজে দলমত নির্বিশেষে সবাই সবাইকে সাহায্য করবে।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

উত্তর দিন

Your email address will not be published.