সততার সাথে - সততার পথে

কতবার আমরা নাকে মুখে হাত দিয়ে ফেলছি? সাবধান হবার সময় এসেছে।

অসুখে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসকের কাছে গিয়ে চিকিৎসা করার চেয়ে আগে থেকেই সেই রোগ প্রতিরোধ এর ব্যবস্থা করতে পারলে সবচাইতে ভালো। কথায় আছে না, ‘প্রিভেনশন ইজ বেটার দ্যান কিয়র’।বর্তমানে পৃথিবী করোনা সংকটে জর্জরিত। অসংখ্য লোক এতে আক্রান্ত হয়ে পড়েছেন এবং মারা যাচ্ছেন।

সোশ্যাল ডিস্ট্যান্স বা সামাজিক দূরত্বই হল এই রোগকে আটকে দেওয়ার মূলমন্ত্র। বলা হচ্ছে বারবার কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড ধরে হাত পরিষ্কার করতে। কোন অবস্থাতেই যেন হাতের মাধ্যমে সংক্রমণ নাক, মুখ বা চোখ দিয়ে প্রবেশ করতে না পারে।

কিন্তু সাধারণভাবে সারাদিনে মানুষ অসংখ্যবার হাত, মুখে-নাকে-চোখে দিয়ে ফেলেন। আমরা সাধারণভাবে বুঝতেই পারিনা যে অজান্তেই আমরা কতবার এটা করলাম, আর এখান থেকেই এই করোনা ভাইরাস সংক্রমণের মারাত্মক ঝুঁকি থেকে যাচ্ছে। তাহলে আমরা জেনে নেই বিশেষজ্ঞরা কি বলছেন এ ব্যাপারে। এ সময়ে নিজের হাতকে একদম বন্ধু বলে ভাবা ঠিক হবে না, নিজের হাতই নিজের বিপদ বাড়াতে পারে।

মুখে হাত না যেতে দেওয়া একটা কষ্টকর ব্যাপার, বাড়িতে মাক্স পড়ে সব সময় থাকা যাবে না। তাই পরিসংখ্যান জানলে আমাদের সতর্ক হতে সুবিধা হতে পারে। গবেষণা বলছে, যে সব ছাত্ররা ডাক্তারি পড়েন তারা প্রতি ঘন্টায় কমকরেও ২৩ বার হাত দিয়ে মুখ স্পর্শ করেন অর্থাৎ প্রতি আড়াই মিনিটে একবার করে। যারা অফিসে কর্মরত তাদের ক্ষেত্রে দেখা গেছে ঘন্টায় ১৬ বার করে নিজেদের মুখে হাত দিয়ে ফেলা হচ্ছে। আবার যারা চিকিৎসক তারাও প্রতি ঘন্টায় ১৯ বারের বেশি এই কাজটা করে ফেলেন।

যখন আমরা দুশ্চিন্তাগ্রস্ত বা টেনশানে থাকি তখনো কিন্তু আমরা বেশি করে নাকে মুখে হাত দিয়ে ফেলি। গর্ভবতী মহিলারাও নাকি তাদের বাম হাত বারবার করে মুখে নিয়ে যান। আবার যেসব মহিলারা ধুম্রপান করেন তারাও অন্য মহিলাদের থেকে বেশি করে এই কাজটি করে ফেলেন। তাই যেমন করেই হোক এই অভ্যাস অন্তত কিছুদিনের জন্য আমাদেরকে কমিয়ে ফেলতেই হবে, যাতে নিজের এবং পরিবারের সকলে সুস্থ থাকতে পারে।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

উত্তর দিন

Your email address will not be published.